আজ, বুধবার | ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | সন্ধ্যা ৬:১২

ব্রেকিং নিউজ :
মাগুরায় প্রথম ধাপের উপজেলা নির্বাচনের প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ মাগুরায় নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন জাহিদুর রেজা চন্দন ও নবীব আলী মহম্মদপুরে চেয়ারম্যান পদে ৯ জন শালিখায় ৫ জনের মনোনয়ন পত্র জমা স্মৃতির আয়নায় প্রিয় শিক্ষক কাজী ফয়জুর রহমান স্মৃতির আয়নায় প্রিয় শিক্ষক কাজী ফয়জুর রহমান মাগুরা সদরে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে ৭ শ্রীপুরে ৪ প্রার্থীর মনোনয়ন জমা বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও রাজনীতিক কাজী ফয়জুর রহমানের ইন্তেকাল মাগুরার শ্রীপুরে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা! শায়লা রহমান সেতুর নির্মম মৃত্যুর বিচারের দাবিতে জাসদের মানববন্ধন সমাবেশে মাগুরায় ভুল চিকিৎসায় প্রসূতি মৃত্যুর অভিযোগে মামলা-মানববন্ধন

শতবর্ষ পেরিয়ে মাগুরার ঐতিহ্যবাহী দত্ত বাড়ির জগদ্ধাত্রী পূজা

মাগুরা প্রতিদিন ডটকম : মাগুরা শহরের নিজনান্দুয়ালী গ্রামে দত্ত বাড়ির উদ্যোগে শনিবার ঐতিহ্যবাহী জগদ্ধাত্রী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১শ’ বছরেরও বেশি সময় ধরে মাগুরা শহরের দত্ত বাড়ির উদ্যোগে বনেদিআনায় এখনও অটুট রয়েছে শক্তির দেবি জগদ্ধাত্রী দুর্গার আরাধনা।

শনিবার সকালে পরিবারের সদস্য এবং স্থানীয় পূজারিদের উপস্থিতিতে নিজনান্দুয়ালী গ্রামের বর্তমান মন্দিরে শুরু হয় পূজা অর্চনার কাজ। সময় গড়ানোর সাথে সাথে পার্শ্ববর্তি এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের পাশাপাশি জেলার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আগত ভক্তবৃন্দ নানা অর্ঘ নিয়ে সেখানে ভিড় করেন।

মাগুরা শহরের দত্ত পরিবারের সদস্য প্রয়াত শ্রী সন্তোষ কুমার দত্তের সহধর্মিনী লিপিকা দত্ত জানান, ১৯৩০ সাল থেকে বর্তমান মন্দিরে পূজা হচ্ছে। তবে তার আগে একই  স্থানে টিন ও খড়ের ঘরে পূজা শুরু হয়। বংশ পরম্পরায় যেটি এখনও টিকে আছে সমহিমায়।

মন্দিরের পূজারি ব্রাহ্মন প্রলয় চক্রবর্তি জানান, কার্তিক মাসের শুক্লা নবমী তিথিতে দেবী জগদ্ধাত্রীর বাৎসরিক পূজা অনুষ্ঠিত হয়। হিন্দু বাঙালির ধর্মীয় মানসে রাজসিক দেবী দুর্গা (পার্বতী) ও তামসিক কালীর পরেই স্থান সত্ত্বগুণের দেবী জগদ্ধাত্রীর।

তিনি বলেন, জগদ্ধাত্রী পূজার নিয়মটি একটু স্বতন্ত্র। দুটি প্রথায় এই পূজা হয়ে থাকে। কেউ কেউ সপ্তমী থেকে নবমী অবধি দুর্গাপূজার ধাঁচে জগদ্ধাত্রী পূজা করে থাকেন। আবার কেউ কেউ নবমীর দিনই তিন বার পূজার আয়োজন করে সপ্তমী, অষ্টমী ও নবমী পূজা সম্পন্ন করেন। তবে এই পূজার অনেক প্রথাই দুর্গাপূজার অনুরূপ।

জগদ্ধাত্রী বা জগদ্ধাত্রী দুর্গা হিন্দু শক্তি দেবী। ইনি দেবী দুর্গার (পার্বতী) অপর রূপ। উপনিষদে তার নাম উমা হৈমবতী। বিভিন্ন তন্ত্র ও পুরাণ গ্রন্থেও তার উল্লেখ পাওয়া যায়। যদিও জগদ্ধাত্রী আরাধনা বিশেষত বঙ্গদেশেই প্রচলিত।

জগদ্ধাত্রী পূজা বাঙালি হিন্দু সমাজের একটি বিশিষ্ট উৎসব হলেও, দুর্গা বা কালীপূজার তুলনায় এই পূজার প্রচলন অপেক্ষাকৃত আধুনিক কালে ঘটে। অষ্টাদশ শতকে নদিয়ারাজ কৃষ্ণচন্দ্র রায় তার রাজধানী কৃষ্ণনগরে এই পূজার প্রচলন করার পর এর জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পায়। যদিও দেবী জগদ্ধাত্রী যে বাঙালি সমাজে একান্ত অপরিচিত ছিলেন না, তার প্রমাণও পাওয়া যায়।

শূলপাণি খ্রিস্টীয় পঞ্চদশ শতকে কালবিবেক গ্রন্থে কার্তিক মাসে জগদ্ধাত্রী পূজার উল্লেখ করেন। পূর্ববঙ্গের বরিশালে খ্রিস্টীয় অষ্টম শতকে নির্মিত জগদ্ধাত্রীর একটি প্রস্তরমূর্তি পাওয়া যায়। বর্তমানে এই মূর্তিটি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের আশুতোষ সংগ্রহশালার প্রত্নবিভাগে রক্ষিত।

কৃষ্ণচন্দ্রের রাজত্বকালের আগে নির্মিত নদিয়ার শান্তিপুরের জলেশ্বর শিবমন্দির ও কোতোয়ালি থানার রাঘবেশ্বর শিবমন্দিরের ভাস্কর্যে জগদ্ধাত্রীর মূর্তি লক্ষিত হয়। তবে বাংলার জনসমাজে কৃষ্ণচন্দ্রে পূর্বে জগদ্ধাত্রী পূজা বিশেষ জনপ্রিয়তা অর্জন করেনি। কেবল কিছু ব্রাহ্মণগৃহে দুর্গাপূজার পাশাপাশি জগদ্ধাত্রী পূজা অনুষ্ঠিত হতো।

পারিবারিক এ পূজার ঐতিহ্য রক্ষা করতে তাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে বলে জানান এই পরিবারের বয়োজ্যেষ্ঠ নিমাই দত্ত ও তুষার দত্ত।

শেয়ার করুন...




©All rights reserved Magura Protidin. 2018-2022
IT & Technical Support : BS Technology